ছাতক থানার দালাল বিল্লাল’র বিরুদ্ধে মামলা

ছাতক সংবাদদাতা:: ছাতক থানার দালাল উত্তর খুরমা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। দ-বিধি ৩২৬সহ একাধিক ধারায় ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ ও ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান শান্তসহ ৩৬জনের বিরুদ্ধে এ মামলা দয়ের করা হয়। গতকাল শুক্রবার বিল্লাল আহমদের সন্ত্রাসী কর্মকা-ের বিরুদ্ধে উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়নের গহরপুর গ্রামের হাজী আলকাছ আলীর পুত্র তাজিজুর রহমান বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

জানা গেছে, স্থানীয় সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিকের চাচাতো ভাই পরিচয়ে ছাতক থানায় দলীয় প্রভাব দেখিয়ে টাকার বিনিময়ে মামলা জালিয়াতি করতেন বিল্লাল আহমদ। প্রভাবশালী হওয়ায় থানায় আসা লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে মামলা এফআইআর করিয়ে দিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষদেরকে মামলার ভয় ভিতি দেখিয়ে বিভিন্ন উপায়ে টাকা উদ্ধার করে নিতেন বলে তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। ছাতকে বিভিন্ন ধরণের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সাথে বিল্লাল জড়িত রয়েছেন এমন অভিযোগের শেষ নেই। সম্প্রতি সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার বরকত উল্লাহ খানের সামনে উপজেলার সিংচাপইড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের উপর হামলার চেষ্টা করছেন এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দু হোন বিল্লাল। তাছাড়াও সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়ক অবরোধ করে বিভিন্ন সময় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চলে তার নেতৃত্বে। বিল্লাল আহমদের নেতৃত্বে গত ২২ আগস্ট মঙ্গলবার সিংচাপউড় ইউনিয়নে একটি মিছিলে সশস্ত্র হামলাও করা হয় ।

তাজিজুর রহমানের দায়ের করা মামলা থেকে জানা যায়, বিল্লাল আহমদ কর্তৃক সিংচাপইড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের উপর দ্রুত বিচার আইনে একটি মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিবাদে ইউনিয়নবাসী ২২ আগষ্ট কালীপুর পয়েন্ট থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। বিক্ষোভ মিছিলে ইউপি চেয়ারম্যান বিলাল আহমদ ও ইউপি সদস্য আজিুজর রহমান শান্তর নেতৃত্বে ইউনিয়নবাসীর মিছিলে সশস্ত্র হামলা করা হয়। হামলাকারীরা মিছিলে আসা লোকজনের উপর আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে এলোপাতারী গুলিবর্ষন করে চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের চাচা লুৎফুর রহমানসহ ১৫-২০জন নিরীহ লোককে গুরুতর আহত করে। এ হামলায় আহত হয় আরো অর্ধশতাধিক ইউনিয়নবাসী।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী তাজিজুর রহমান জানান, এমপি মুহিবুর রহমান মানিকের মদদে তার চাচাতো ভাই উত্তর খুরমা ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সরকারী বরাদ্ধ লুটপাটের টাকায় গড়ে তুলেছে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। হামলা-মামলা করে গত ১০ বছর ধরে এলাকার মানুষকে হয়রানী ও নির্যাতন করে যাচ্ছে। সরকারী সম্পদ লুটপাটে প্রতিবাদী হয়ে উঠলে সিংচাপইড় ইইনয়নের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলের উপর ক্ষমতাবলে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করা হয়। চেয়ারম্যামেনের উপর থেকে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে ইউনিয়নবাসী মিছিল বের করলে সিলেট থেকে আনা ভাড়াটে ক্যাডারসহ তার পোষ্য সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মিছিলে পরিকল্পিত হামলা করা হয়। হামলাকারী অবৈধ অস্ত্রধারীদের গ্রেফতারের দাবী জানান মামলার বাদী তাজিজুর রহমান। ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ জানান, তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে কি না তিনি জানেন না। ছাতক থানার ওসি(তদন্ত) আশরাফুল ইসলাম মামলার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

শেয়ার করুন