প্রধানমন্ত্রী’র বরাবর চেয়ারম্যান সাহেলের খোলা চিঠি

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দেশরত্ন শেখ হাসিনা। আমরা জানি, আপনি একজন মমতাময়ী মা, আপনি কি জানেন এবার কত বাবাকে নিদানের দরজায় আত্মাহুতি দিতে হবে উপযুক্ত মেয়ে কে বিয়ে দিতে না পাড়ার যন্ত্রনায়? কারন বরপক্ষের সাথে কথা ছিল এবার ফসল উঠলে পরে ধুমধাম করে মেয়ের বিয়ে হবে, পিতার হবে দায়মুক্তি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি হয়ত জানেন না এবার কত মেধাবী অকালে ঝড়ে পড়বে। কারন বাঁধের সাথে তাদের মেধাশক্তি ও ভেসে গেছে। কারন নিশ্চই আপনি বোঝবেন , বাড়িতে মা বাবা ভাই বোনকে উপোষ রেখে আর যাই হোক কোন সন্তান তার মেধাশক্তি দেখাতে পারেনা। প্রতিটি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রকে সোজা গিয়ে হয় কোন বাসের হেল্পার, দিন মজুরি অথবা কোন রিকশার হেন্ডেল ধরে জীবন যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া ছাড়া কোন পথ খোলা থাকবেনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার মত একজন সফল রাষ্ট্র নায়ক থাকতে তা কি করে সম্ভব।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি কি জানেন মংগার কত জ্বালা? সুনামগঞ্জ জেলার প্রতিটি ইউনিয়ন আক্রান্ত হবে মহামারীতে চুরি, ডাকাতি, রাহাজানি, হানাহানি, হয়ে উঠবে নিত্যদিনের ব্যাপার। আমার প্রিয় শান্তির, জল জোছনার, ভাটি বাংলা, অশান্তির কালো ছায়ায় ঢেকে যাবে। আমার প্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ষোল কোটি বাঙালির অভিভাবক, আপনি কি তাই চান?

যদি তাই না চান তাহলে এখুনি কঠোর পদক্ষেপ নিন সেই সব অসৎ কুলাঙ্গার কালো বিড়াল, রক্ত পিশাচ হায়নাদের বিরুদ্ধে যাদের নামের আগে জনগনের সেবার জন্য আপনি দয়া করে এম, পি, উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান,এর মত মহৎ নাম লাগিয়ে দিয়েছেন। ব্যবস্থা নিন সকল অসৎ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বিরুদ্ধে যাদেরকে আপনি এই জনগোষ্ঠীর হাড় ভাঙা পরিশ্রমের টেক্সের টাকায় বেতন দেন। কঠোর ব্যবস্থা নিন সেই সব অসৎ ঠিকাদার দের বিরুদ্ধে যারা আজকে এই ভাটি বাংলার কৃষকের বুকের পাঁজর ভেঙে গড়া স্বপ্নকে বাধের সংগে ভাসিয়ে দিয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমরা সুনামগঞ্জবাসী আপনার প্রতি কৃতজ্ঞ। কারন আপনি আমাদের শেখ রফিকুল ইসলাম স্যার এর মত মানবিক বোধ সম্পন্ন একজন জেলা প্রশাসক দিয়েছেন, যার প্রজ্ঞা, নিষ্ঠা, বিচক্ষণতা, সততা, কঠোর পরিশ্রম সুনামগঞ্জ জেলাকে নিয়ে গিয়েছে এক অনন্য উচ্চতায়। আপনি কি জানেন? মাননীয় জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম স্যার তিন দিন ফোন করলেও পাঃউঃবির দুর্নীতিবাজ, দালালদের সাথে আতাত করা কর্মকর্তা উনার ফোন ধরেনি। আপনি কি জানেন ? মাননীয় জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম স্যার যখন পাঃউঃবির দুর্নীতিবাজ, কর্মকর্তাকে তাৎক্ষণিক ভাবে জরুরী ভিত্তিতে সকল হাওড়ের বাধ রক্ষার জন্য বালির বস্তা পাঠাতে নির্দেশ দেন, তখন সেই পাঃউঃবির দুর্নীতিবাজ, কর্মকর্তা তার ফোন বন্ধ করে ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। আপনি কি জানেন ছাতক উপজেলার দায়িত্বশীল সজীব পাল নামক পাঃউঃবির এক কর্মকর্তা আমার সিংচাপইড় ইউনিয়নের বাধ রক্ষার অর্থ স্থানীয় এক এম, পি যে কিনা আজ দুই বছর আগে আমাদের সিংচাপইড় ইউনিয়নের কামারগাও টু ভাতগাও সড়ক এর ৩ টি প্রকল্পে ১৩ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকার কাজ উদ্বোধন করেন কিন্তু আজ পর্যন্ত এক ভাগ কাজ ও করতে পারেনি সেই কাল অপদার্থের কথায় কমিটি নামক জটিলতা দেখিয়ে ছাড় করেনি। কিন্তু আমাদের দমাতে পারেনি। আমাদের ছাতক উপজেলার সুযোগ্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব #আরিফউজ্জামান মহোদয়ের আন্তরিক সহযোগীতায় দেরীতে হলেও আমাদের ৭নং সিংচাপইড় ইউনিয়নের ভাঙা বাধের সংস্কার কাজ শুরু করতে সক্ষম হই। উনার কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার পায়ে ধরে বলি এই ভাটি বাংলার দায়িত্ব আপনি নিন। আপনি খুজে বের করুন কোন খুটির জোড়ে পাঃউঃবির কর্মকর্তা একজন জেলা প্রশাসকের জনগুরুত্ব পূর্ণ নির্দেশ অমান্য করতে পারে। এত ক্ষমতা এরা পায় কই? কে তাদের রক্ষাকারী? এদের বিরুদ্ধে আপনি কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহন করুন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনি নিশ্চয় জানেন ক্ষুদার রাজ্যে পৃথিবী গদ্যময়। অসহায় চিন্তায়, ক্ষুদার জালায়, যদি শান্ত ভাটি বাংলার মানুষজন চিৎকার করে বলে, ‘ভাত দে নইলে মানচিত্র চিবিয়ে খাব’।

তাহলে আপনার বাবা আমাদের বাঙালি জাতির পিতা বংঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ভালবাসায় সিক্ত এই সুনামগঞ্জ জেলায় আমাদের সরকার, আমাদের দল চরম ক্ষতিগ্রস্ততার মুখে পড়বে। যা কোন ভাবেই আমরা হতে দিতে পারিনা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দয়া করে সাধারন মানুষের ক্ষোভ প্রশমনের জন্য হলেও কিছু একটা করুন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দয়া করে সুনামগঞ্জ জেলার জন্য কিছু একটা বলুন। যাতে এই জেলার মানুষের মধ্য আশার সঞ্চার হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগকে আল্লাহ তালার হুকুম মেনে নিয়ে সারা বৃহত্তর সিলেট এর কৃষক আপনার মুখের দিকে তাকিয়ে রয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আমাকে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার ৭নং সিংচাপইড় ইউনিয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকার প্রার্থী হিসেবে ইউনিয়নের জনগন দল মত নির্বিশেষে আমাকেও চেয়ারম্যান এর গুরু দায়িত্ব অর্পণ করে। আজকের আমার এই লেখা আমার উপর অর্পিত দায়িত্ববোধ থেকে, আমি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী মনোনীত প্রার্থী হয়েও স্থানীয় এমপির হিংসার শিকার আমার অসহায় জনগনের জন্য কিছু করতে না পারার ক্ষোভ থেকে। তাই আমার লিখায় যদি কোন ভূল হয় তা হলে আমার প্রাণ সংহার করে হলেও আমার জনগনকে রক্ষায় একটু নজর দিবেন এই কামনায়,,,,, জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।

আপনার একান্ত বাধ্যগত,
সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল।
চেয়ারম্যান,
৭নং সিংচাপইড় ইউপি, ছাতক।
সাবেক সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ
সুনামগঞ্জ জেলা।
তাং- ০৪/০৪/২০১৭ ইং।

শেয়ার করুন