কে হচ্ছে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ’র সভাপতি-সম্পাদক?

সুনামগঞ্জ সংবাদদাতাঃ সব জল্পনা কল্পনার অবসানের মাধ্যমে নতুন কমিটি পেতে যাচ্ছে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ। কমিটি গঠনের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দশনা অনুযায়ী জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দের কাছে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশীরা। গত ১৫ মার্চ শেষ দিনের মতো জীবনবৃত্তান্ত জমা নেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে আগ্রহী ৭৫ জন নেতাকর্মী।

পদ প্রত্যাশী ৭৫ জনের মধ্যে কে হবে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এনিয়ে চলছে নানান মহলে গুঞ্জন।

জেলার নতুন নেতৃত্বের অপেক্ষায় আছেন তৃণমূল ছাত্রলীগের কর্মীরাও। নতুন এই কমিটিতে যোগ্য নেতৃত্ব নির্বাচনে কেন্দ্রীয় কমিটি যেন সঠিক সিদ্ধান্ত নেয় সেই প্রত্যাশায় তৃণমূলের ছাত্রলীগ কর্মীরা।

জেলা কমিটির সভাপতি পদের জন্য জীবনবৃত্তান্ত জমাদানকারী নেতৃবৃন্দরা হলেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরী, সাবেক সহ সভাপতি আরিফ উল আলম, সাবেক সহ সভাপতি ইকবাল হোসেন, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, সাবেক গণযোগাযোগ ও উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক রুবেল আহমেদ, সাবেক প্রচার সম্পাদক তানজিলুর রহমান, সাবেক উপ প্রচার সম্পাদক এনামুল হক চৌধুরী রুমেন, সাবেক সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক হাবিব আল হাসান তপু, সাবেক ত্রাণ ও দুর্যোগ সম্পাদক ঈসতিয়াক আলম পিয়াল, সাবেক সহ সম্পাদক নাজমুল হক কিরন, সাবেক সহ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান লিমন, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বরুণ কান্তি দে, সাবেক পরিবেশ সম্পাদক মনসুর আহমেদ, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুল ইসলাম খালেদ, সাবেক উপ অর্থ সম্পাদক আবুল হাসনাত রিফাত, সাবেক উপ মানব সম্পদক উন্নয়ন সম্পাদক আবুল হাসনাত মোহাম্মদ কাউছার, সদর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বিপ্লব বাবুসহ আরো বেশ কয়েকজন।
সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক শেখ শহিদুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রবৃত্তি সম্পাদক সৌমিক পূরকায়স্থ রাহুল, সাবেক শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক রিপন মিয়া, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাংশু তালুকদার বিপ্টু, ছাত্রলীগ নেতা এনায়েত রেজা জিসান, ছাত্রলীগ নেতা দীপংকর কান্তি দে, নূর মোহাম্মদ স্বজন, সদর থানা ছাত্র লীগের সাধারণ সম্পাদক আকসার ইবনে আজিজ পাঠান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক স্কুল ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শাহ মোফাজ্জল হোসেন, সাবেক সহ সম্পাদক ফয়েজুল ইসলাম সুমন, সাবেক সদস্য মাসকাওয়াত জামান ইন্তি, অভিজিৎ চৌধুরী টিংকু, সজীব আহমদ, সাহাজুল কাজী, সৃজন দেব, সবুজ দেবনাথ, সৈকত সরদার, সাগড় বড়–য়া, মাজেদুল ইসলাম, সুকান্ত পূরকায়স্থ, ছাত্রলীগ নেতা ফয়সল আহমদ, লিকন আহমেদ, তৈয়বুর রহমান, জগৎজ্যোতি রায়, জগন্নাথপুর উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা কাজী এনামুল ও তানভির আলম পিয়াস, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা তানভির আহমদ সোহাগসহ আরো বেশ কয়েক কয়েকজন।

উল্লেখ্য, বেশ কয়েকবার তারিখ ঘোষণা করেও সম্মেলন না হওয়ায় গত ১১ মার্চ শনিবার রাতে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইফুর রহমান সোহাগ এবং সাধারণ সম্পাদক এস.এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত দলীয় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে কমিটি বিলুপ্ত করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত করা হলো। বিজ্ঞপ্তিতে সুনামগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আগ্রহী প্রার্থীদেরকে আগামী ১৫ মার্চের ভিতরে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের কাছে জীবনবৃত্তান্ত জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

জানা যায়, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস.এম. জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক পত্রে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ স¤পাদককে ১১ মার্চ জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু ১১ মার্চ শনিবার সম্মেলন না হওয়ায় জেলা কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে ফজলে রাব্বী স্মরণকে সভাপতি ও রফিক আহমেদ চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০ সদস্য বিশিষ্ট ছাত্রলীগের জেলা কমিটি গঠন করা হয়। পরে ২০১৪ সালে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ঠিক রেখে ১২১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করা হয়।

শেয়ার করুন