মুসা বিন শমসেরের বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ

প্রিন্স মুসা বিন শমসেরের ব্যবহৃত গাড়িশুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনার অভিযোগে ধনকুবের প্রিন্স মুসা বিন শমসেরের ব্যবহৃত একটি রেঞ্জ রোভার গাড়ি জব্দ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ মার্চ) দিনভর অভিযান চালিয়ে বিকালে রাজধানীর ধানমণ্ডি থেকে এটি জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।

শুল্ক গোয়েন্দারা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গুলশান-২ নম্বরে প্রিন্স মুসার বাড়িতে অভিযান চালান তারা। বাড়ির সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখে গাড়িটি গোয়েন্দাদের কাছে হস্তান্তরের জন্য প্রিন্স মুসাকে নোটিশ দেওয়া হয়।

ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, গাড়িটিতে চড়ে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টায় প্রিন্স মুসার নাতি ধানমণ্ডির সানবিম স্কুলে গেছে। এরপর গোয়েন্দাদের উপস্থিতি টের পেয়ে গাড়িটি একই এলাকার লেকব্রিজ অ্যাপার্টমেন্টে সরিয়ে নেওয়া হয়।

রেঞ্জ রোভারে করে প্রিন্স মুসার নাতিকে স্কুলে পাঠানো হলেও বেলা ২টায় অন্য আরেকটি গাড়িতে চড়ে সে বাড়িতে ফেরে। এরপর খোঁজ পেয়ে শুল্ক গোয়েন্দাদের একটি টিম ধানমণ্ডির বাড়ি থেকে বিকাল সাড়ে ৩টায় গাড়িটি জব্দ করে।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান খবরটি নিশ্চিত করে জানান, ভুয়া আমদানি দলিলাদি দিয়ে গাড়িটি ভোলা-ঘ ১১-০০-৩৫ হিসেবে নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) নেওয়া হয়েছিল। কাগজপত্র যাচাই করে দেখা যায়, চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের বিল অব এন্ট্রি ১০৪৫৯১১, ১৩ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে গাড়িটির ১৩০ শতাংশ শুল্ক প্রদান করে ভোলা থেকে নিবন্ধন গ্রহণ করা হয়।

এছাড়া নিবন্ধনে গাড়ির রঙ সাদা উল্লেখ থাকলেও জব্দ করার সময় দেখা গেছে সেটি কালো। কাস্টম হাউসের নথি যাচাই করে এই বিল অব এন্ট্রি ভুয়া হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। ভোলার বিআরটিএ জানায়, জব্দকৃত গাড়িটি পাবনার ফারুকুজ্জামান নামের এক ব্যক্তির নামে নিবন্ধন নেওয়া হয়।

বাংলা ট্রিবিউনকে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক আরও জানান, গোয়েন্দাদের তথ্য অনুযায়ী গাড়িটি মুসা বিন শমসের নিজে ব্যবহার করতেন। শুল্ক আইন ও অর্থপাচার আইনে তদন্ত শেষে মামলাসহ পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন